শিল্পকলায় ৬৪ জেলার প্রশিক্ষকদের নিয়ে ৩ দিনব্যাপী প্রশিক্ষণ কর্মশালা শুরু

প্রশিক্ষকদের মান উন্নয়নের লক্ষ্যে সারাদেশের ৬৪ জেলায় বিষয়ভিত্তিক ২৯-৩১ আগস্ট ৩ দিনব্যাপী কর্মশালার আয়োজন করেছে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি।
আজ উদ্বোধনের পর প্রশিক্ষণের প্রথম দিনে সকাল ১১টা-দুপুর ১ টা পর্যন্ত নাট্যকলা বিষয়ক সিলেবাস এর ওরিয়েন্টেশন ক্লাসে প্রশিক্ষণ দেন একাডেমির নাট্যকলা বিভাগের সিনিয়র ইন্সট্রাক্টর ড. আইরিন পারভীন লোপা। এছাড়াও ‘উচ্চারণ ও বাচনরীতি’; ‘বিশ্ব নাট্যধারা (গ্রীক থেকে আধুনিক)’ এবং ‘বাচিক অভিনয় ও নাট্যশাস্ত্র’ এর উপর প্রশিক্ষণ প্রদান করা হয়।
প্রতিদিন সকাল ৯টা থেকে সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত একাডেমির জাতীয় নাট্যশালার সেমিনার হলে এই প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত হবে। নাট্যকলা ও আবৃত্তি প্রশিক্ষকদের নিয়ে আয়োজিত প্রশিক্ষণ কর্মশালায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে কর্মশালার উদ্বোধন করেন একাডেমির মহাপরিচালক লিয়াকত আলী লাকী।
প্রশিক্ষণে সারাদেশ থেকে নাট্যকলা ও আবৃত্তি বিষয়ক ৬৬ জন অংশগ্রহণ করেন।
কর্মশালার দিত্বীয় দিনে ‘অভিনয় তত্ত্ব : (স্তানিসলাভস্কি ব্রেখট, মায়ার হোল্ড গ্রোটক্সি)’; ‘নৃত্যকলা ও চিত্রকলা’; ‘বাংলা নাট্যধারা: (স্বাধীনতা পূর্ব ও পরবর্তী)’; ‘বাংলা লোকনাট্য অভিনয় পদ্ধতি’; ‘নন্দনতত্ত্ব’ এবং ‘কবিতা আবৃত্তি ও পাঠ অভিনয়’ বিষয়ক প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে। পরিবেশিত হবে কথক, ভরতনাট্যম, মণিপুরি, ওডিসি এবং গৌড়ীয় নৃত্য পরিবেশনা। এছাড়াও সায়িক সিদ্দিকীর লোকনাট্য পরিবেশনা এবং একাডেমির জাতীয় নাট্যশালায় পরিবেশিত হবে একাডেমির মহাপরিচালক লিয়াকত আলী লাকীর নির্দেশনায় নাটক ‘তপস্বী ও তরঙ্গিনী’।
কর্মশালার সমাপনী দিনে ‘তাল, লয়, ছন্দ এবং বাদ্যযন্ত্র আবহ সংগীত’; ‘আলো পরিকল্পনা, মঞ্চ পরিকল্পনা ও প্রপস পরিকল্পনা’; ‘পান্ডুলিপি বিশ্লেষণ, নাটক: রথযাত্রা’; ‘পোষাক ও রূপসজ্জা পরিকল্পনা’ এবং ‘পর্যবেক্ষণ, গেমস্ ও বিজনেস’ বিষয়ক প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে।
প্রশিক্ষণ শেষে ৩১ আগস্ট প্রশিক্ষণ কর্মশালার সমাপনী অনুষ্ঠানের মাধ্যমে প্রশিক্ষনার্থীদের সনদপত্র দেওয়া হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.