সেন্টমার্টিনে জালে আটকা পড়লো ৫৭ কেজির দুটি বড় পোয়া

আব্দুস সালাম,টেকনাফ(কক্সবাজার)
টেকনাফ সেন্টমার্টিনের জেলেদের জালে ধরা পড়েছে বড় দুটি পোয়া মাছ।জেলেরা জানিয়েছেন, মঙ্গলবার (৮নভেম্বর) সকালে সেন্টমার্টিন উপকূলে জেলেদের জালে ধরা পড়া মাছ দুটির ওজন ৫৭ কেজি। স্থানীয় ব্যবসায়ীরা মাছ দুটির দাম তিন লাখ টাকা হাঁকিয়েছেন।

জেলেরা জানান, সোমবার রাতে দ্বীপের বাসিন্দা জেলে আবদুল গনির নেতৃত্বে পাঁচ মাঝিমাল্লা বঙ্গোপসাগরে মাছ শিকারে যান। মঙ্গলবার ভোরে দ্বীপে পশ্চিমপাড়া এলাকায় সমুদ্রে জাল তুললে দুটি বড় পোয়া মাছ পাওয়া যায়। মাছ দুটি নিয়ে দ্বীপের জেটিঘাটে ফিরে আসার পর উৎসুক মানুষের ভীড় জমে যায়।

টেকনাফ বোট মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক আবুল কালাম বলেন, ‘সেন্টমার্টিনের জেলেদের জালে ধরা পড়া ৫৭ কেজি ওজনের পোয়া মাছ দুটি বেশি দামে বিক্রির জন্য কক্সবাজারে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।’

স্থানীয় ইউপি সদস্য খোরশেদ আলম জানান, আবদুল গনির জালে ধরা পড়া পোয়া মাছ দুটির দাম স্থানীয় মাছ ব্যবসায়ীরা ৩ লাখ টাকা হাঁকিয়েছেন। কিন্তু পরে বিক্রি না করে বেশি দাম পাওয়ার আশায় কক্সবাজার নিয়ে যান তারা। এছাড়া জেলে গনির জালে ২০১৮ সালের ১৪ নভেম্বর ৩৪ কেজি ওজনের একটি পোয়া মাছ ধরা পড়েছিল। তিনি সেটি বিক্রি করেন ১০ লাখ টাকায়। ২০২০-এর নভেম্বর মাসে আবারও গনির জালে ধরা পড়া পোয়া মাছ বিক্রি হয় ৬ লাখ টাকায়। আজ আবারও তৃতীয় বারের মতো নভেম্বর মাসে এসে জোড়া পোয়া মাছ ধরা পড়ে তার জালে।

টেকনাফ উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা দেলোয়ার হোসেন জানান, পোয়া মাছের পেটের ভেতর ‘ফদনা’ নামে বিশেষ অংশ থাকে। স্থানীয় ভাষায় সেটিকে ‘ফুলা’ বলে, যা ওষুধ তৈরিতে ব্যবহৃত হয়। এই ‘ফদনা’ শুকিয়ে ওষুধের কাঁচামাল হিসেবে বিদেশে উচ্চমূল্যে বিক্রি করা হয়। ফলে পোয়া মাছের দাম ও চাহিদা বেশি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *