বিশ্বের সবচেয়ে নিরাপদ পোশাক কারখানা বাংলাদেশে

বিশ্বের সবচেয়ে নিরাপদ এবং সবুজ পোশাক কারখানার দেশ হিসেবে মর্যাদা পেয়েছে বাংলাদেশ। ইন্টারন্যাশনাল ট্রেড সেন্টারের (আইটিসি) সর্বশেষ প্রকাশনায় এই স্বীকৃতি দেওয়া হয়েছে। একই সঙ্গে ‘ইফেকটিভ ম্যানেজমেন্ট অব ইন্ডাস্ট্রি অ্যাসোসিয়েশন’ ক্যাটাগরিতে সেরা হিসেবে পোশাক উৎপাদন ও রফতানিকারক উদ্যোক্তাদের সংগঠন বিজিএমইএ-কে মনোনীত করা হয়েছে।

আইটিসি বলছে, রফতানিমুখী তৈরি পোশাক উৎপাদনের নিরাপদ কর্মপরিবেশ হিসেবে অনেক ভালো অনুশীলন আছে বাংলাদেশে।

এদিকে কীভাবে বাংলাদেশের পোশাক খাত নিরাপদ এবং সবুজ কারখানার দেশে পরিণত হলো তা বিশ্ববাসীকে জানাতে চায় আইটিসি। সংস্থাটির আয়োজনে আগামী ১৩ অক্টোবর অনুষ্ঠেয় এক ওয়েবিনারে বিষয়টি তুলে ধরতে বিজিএমইএ সভাপতি ফারুক হাসানকে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। এতে পোশাক খাতের ভালো অনুশীলন এবং বিজিএমইএর পক্ষ থেকে নেওয়া বিভিন্ন সময়ের পদক্ষেপের বিস্তারিত তুলে ধরবেন তিনি।

প্রসঙ্গত, বাংলাদেশে সবুজ পোশাক কারখানার সংখ্যা এখন ১৭৩টিতে দাঁড়িয়েছে। বিশ্বের সবচেয়ে বেশি সবুজ পোশাক কারখানা বাংলাদেশে অবস্থিত। দীর্ঘদিন ধরে এই শীর্ষস্থান দখল করে আছে বাংলাদেশ। সর্বশেষ তথ্য বলছে, মোট ১৭৩টি সবুজ কারখানার মধ্যে ৫৪টি কারখানা প্লাটিনাম রেটিং, ১০৫টি গোল্ড রেটিং ও ১০টি সিলভার রেটিং পেয়েছে। এ ছাড়া চারটি কারখানা কোনও রেটিং পায়নি, তবে সনদ পেয়েছে। বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে ইউএসজিবিসি এই কারখানাগুলোকে এই স্বীকৃতি দিয়েছে। সবুজ কারখানার তালিকায় বাংলাদেশের পরের অবস্থানে রয়েছে ভিয়েতনাম ও ইন্দোনেশিয়া।

মূলত, বিশ্বের বেশ কিছু প্রতিষ্ঠান পরিবেশবান্ধব স্থাপনার সনদ দিয়ে থাকে। তাদের মধ্যে একটি যুক্তরাষ্ট্রের ইউএস গ্রিন বিল্ডিং কাউন্সিল-ইউএসজিবিসি। তারা ‘লিড’ নামে পরিবেশবান্ধব স্থাপনার সনদ দিয়ে থাকে। লিড হলো লিডারশিপ ইন এনার্জি অ্যান্ড এনভায়রনমেন্টাল ডিজাইন।

সাধারণ স্থাপনার চেয়ে পরিবেশবান্ধব স্থাপনায় ৫-২০ শতাংশ খরচ বেশি হয়। এছাড়া ইউএসজিবিসি লিড সনদ পেতে স্থাপনা নির্মাণে অন্তত ৯টি শর্ত পরিপালন করতে হয়।

এই সনদ পেতে একটি প্রকল্পকে ইউএসজিবিসির তত্ত্বাবধানে নির্মাণ থেকে উৎপাদন পর্যন্ত বিভিন্ন বিষয়ে সর্বোচ্চ মান রক্ষা করতে হয়। ভবন নির্মাণ শেষ হলে কিংবা পুরনো ভবন সংস্কার করেও লিড সনদের জন্য আবেদন করা যায়। ১৯৯৩ সালে প্রতিষ্ঠিত হয় ইউএসজিবিসি।

এর আগে গত বছর (২০২১ সালে) সবুজায়নে ইউএস গ্রিন বিল্ডিং কাউন্সিলের (ইউএসজিবিসি) পক্ষ থেকে লিডারশিপ অ্যাওয়ার্ড তথা বিশ্বে প্রথম ইউএস গ্রিন বিল্ডিং কাউন্সিল অ্যাওয়ার্ড পায় বিজিএমইএ।

বৈশ্বিক পোশাক শিল্প জগতে বিজিএমইএ-ই হচ্ছে একমাত্র সংগঠন, যারা যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষ থেকে এই পদক অর্জন করে। এছাড়াও, বিশ্বের শীর্ষ ১০ পরিবেশবান্ধব পোশাক কারখানার মধ্যে ৯টির মালিক বাংলাদেশ।

এ প্রসঙ্গে বিজিএমইএ সভাপতি ফারুক হাসান বলেন, আন্তর্জাতিক ক্রেতাদের আস্থা বাড়াতে সবুজ ভবনে বিনিয়োগ করছেন আমাদের উদ্যোক্তারা। এর ফলে বাংলাদেশের পোশাক শিল্প বর্তমানে একটি নিরাপদ শিল্প হিসেবে বিশ্বে রোল মডেল তৈরি করেছে। তিনি বলেন, বিশ্বের সবচেয়ে নিরাপদ এবং সবুজ পোশাক কারখানার দেশ হিসেবে মর্যাদা পেয়েছে বাংলাদেশ, এটা সবার জন্য গর্বের। এ ধরনের খবর শিল্প ও দেশের ভাবমূর্তি পুনরুদ্ধারে সহায়তা করেছে বলে মনে করেন বিজিএমইএ সভাপতি ।

উল্লেখ্য, ২০১২ সালের মে মাসে বাংলাদেশের ভিনটেজ ডেনিম স্টুডিও বিশ্বের প্রথম এলইইডি প্লাটিনাম সার্টিফায়েড কারখানা হিসেবে স্বীকৃতি পায়।  ওই বছর পোশাকশিল্পের উদ্যোক্তা সাজ্জাদুর রহমান মৃধার হাত ধরে প্রথম পরিবেশবান্ধব কারখানার যাত্রা শুরু হয় বাংলাদেশে। পাবনার ঈশ্বরদী ইপিজেডে তিনি স্থাপন করেন ভিনটেজ ডেনিম স্টুডিও। তার দেখানো পথ ধরেই দেশে একটার পর একটা পরিবেশবান্ধব পোশাক কারখানা গড়ে উঠছে। উজ্জ্বল হচ্ছে দেশের ভাবমূর্তি।

এর পরের বছর, ২০১৩ সালে রাজধানীতে রানা প্লাজা ভবন ধসে ২ হাজারেরও বেশি মানুষ আহত হওয়ার পাশাপাশি প্রাণ হারান ১ হাজার ১৩৪ জন। সেই ঘটনার পর, সবুজ উদ্যোগে প্রচুর বিনিয়োগ শুরু করেন পোশাক উদ্যোক্তারা।

২০১৪ সালে সবুজ কারখানা স্থাপন করা হয় আরও তিনটি, ২০১৫ সালে হয় ১১টি। ২০১৬, ২০১৭ ও ২০১৮ সালে স্থাপন করা হয় যথাক্রমে ১৬, ১৮ ও ২৪টি। ২০১৯ সালে আরও ২৮টি সবুজ কারখানা গড়ে তোলেন উদ্যোক্তারা। এছাড়া ২০২০ ও ২০২১ সালে ২৪টি করে আরও ৪৮টি কারখানা গড়ে তোলেন পোশাকশিল্পের উদ্যোক্তারা। সবুজ পোশাক কারখানার সংখ্যা এখন ১৭৩টিতে দাঁড়িয়েছে। এ ছাড়া আরও ৫৫০টি পোশাক কারখানা পরিবেশবান্ধব সবুজ কারখানা হতে ইউএসজিবিসির অধীনে কাজ করছে ।

গত সেপ্টেম্বর মাসে বাংলাদেশের আরও দুটি তৈরি পোশাক কারখানাকে সবুজ কারখানা হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছে ইউনাইটেড স্টেটস গ্রিন বিল্ডিং কাউন্সিল (ইউএসজিবিসি)। এরমধ্যে গাজীপুরের আমান টেক্সটাইল লিমিটেড পেয়েছে প্লাটিনাম রেটিং এবং রাজধানীর মধ্যে আয়েশা ফ্যাশন লিমিটেড গোল্ড রেটিং পেয়েছে। এর মধ্য দিয়ে দেশে পরিবেশবান্ধব সবুজ পোশাক কারখানার মোট সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ায় ১৭৩-এ।

দেশের রফতানি আয়ের প্রধান খাত তৈরি পোশাক শিল্পমালিকদের শীর্ষ সংগঠন বিজিএমইএ’র পরিচালক ও মুখপাত্র মহিউদ্দিন রুবেল বলেন, ‘গ্রিন ফ্যাক্টরিতে বাংলাদেশ সবার শীর্ষে। এটা একদিকে আনন্দের, অন্যদিকে মর্যাদার। এটি দেশের পোশাক খাতের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করছে।’

তিনি বলেন, ‘একসময় কারখানার মালিকরা চিন্তা করতেন, এত টাকা খরচ করে কেন এলইইডি (লিড) সার্টিফিকেট নেবেন? কিন্তু এখন তারা বুঝতে পারছেন, সাসটেইনেবল হতে গেলে এর কোনও বিকল্প নেই। তিনি মনে করেন, পরিবেশের ভারসাম্য বজায় রাখা ও প্রতিযোগী সক্ষমতা বাড়াতে লিড সার্টিফিকেট খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *