শিল্প-সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের যত চর্চা হবে, পর্যটন শিল্পের তত বিকাশ ঘটবে

সত্যেন সেন শিল্পীগোষ্ঠীর ৫ম বর্ষা বন্দনা অনুষ্ঠানে জেলা প্রশাসক

বাঙালির প্রাণের ঋতু বর্ষা। এর নানা রূপ যেমন মানুষের মনকে উদ্বেলিত-আন্দোলিত করে, তেমনই বর্ষার রুদ্র রূপ মানুষের ক্ষতির কারণ হয়ে দাঁড়ায়। বর্ষার ক্ষতি মানুষের মনে পীড়া দেয়, করে হতবিহ্বল। তবু বর্ষাকাল বাঙালির খুব প্রিয় এবং অতি কাছের।
‘বারিধারে এসো চারিধার ভাসায়ে, বিদ্যুৎ ইঙ্গিতে দশদিক হাসায়ে’ এই স্লোগানে বর্ষা ঋতুকে বরণ করে নিতে প্রতিবছরের মতো এবারও কক্সবাজারে অনুষ্ঠিত হলো ‘বর্ষাবন্দনা ১৪২৯’। গত বৃহস্পতিবার রাতে শহরের শহীদ দৌলত ময়দানে (পাবলিক হল) এর আয়োজন করে সত্যেন সেন শিল্পীগোষ্ঠী, কক্সবাজার জেলা সংসদ।
সন্ধ্যা সাড়ে সাতটার কর্মসূচির উদ্বোধন করেন উৎসবের প্রধান অতিথি জেলা প্রশাসক মো. মামুনুর রশীদ। তিনি বলেন, বিশ্বের দীর্ঘতম সমুদ্রসৈকত কক্সবাজারে। এই সৈকত দেখতে পর্যটন মৌসুমে লাখ লাখ দেশি-বিদেশি মানুষ ছুটে আসেন। বর্ষার সমুদ্রের উত্তাল রূপ ভ্রমণে যোগ করে ভিন্নমাত্রা। ভারী বর্ষণের সঙ্গে সমুদ্রের উত্তাল রূপ অনেক মানুষকে আন্দোলিত করে। এ কারণে অনেকে বর্ষা মৌসুমে সৈকত ভ্রমণে আসছেন। বর্ষার সঙ্গে মেলবন্ধন সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের। এই শিল্প-সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের যত চর্চা হবে, পর্যটনশিল্পের তত বিকাশ ঘটবে।

সত্যেন সেন শিল্পীগোষ্ঠীর সভাপতি খোরশেদ আলমের সভাপতিত্বে উৎসবে বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন কক্সবাজার পৌরসভার মেয়র ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মুজিবুর রহমান। তিনি বলেন, পর্যটন শহর কক্সবাজারকে বাঁচিয়ে রাখতে হলে সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যকে জাগিয়ে রাখতে হবে। সমাজের অন্ধকার দূর করতে সংস্কৃতিচর্চা ও লালনের বিকল্প নেই।
সায়ন্তন ভট্টাচার্যের সঞ্চালনায় বর্ষা উৎসবের গুরুত্ব তুলে ধরে বক্তব্য দেন, কক্সবাজার পৌরসভার প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা এ.কে.এম তারিকুল আলম, কক্সবাজারের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) বিভীষণ কান্তি দাশ, সংস্কৃতিজন ইঞ্জি. বদিউল আলম, জেলা সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি সত্যপ্রিয় চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ নজিবুল ইসলাম, কক্সবাজার সাংবাদিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক জাহেদ সরওয়ার, কবি মানিক বৈরাগী প্রমুখ।
রাত ১১টা পর্যন্ত চলে গান, কবিতা, নৃত্য, যন্ত্রসংগীত ও কথামালা। সংগঠনের শিল্পীরা এবং ‘গান-নগর’ বর্ষা ও প্রকৃতির কবিতা এবং গান পরিবেশন করেন।
সত্যেন সেন শিল্পীগোষ্ঠীর সভাপতি খোরশেদ আলম বলেন, বৈচিত্র্যময় বাংলার ঋতু বর্ষাকে ভাগাভাগি করে নিতেই বর্ষাবন্দনা উৎসবের আয়োজন। বিপুলসংখ্যক বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ এ উৎসব উপভোগ করেন।
অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন, সত্যেন সেন শিল্পীগোষ্ঠী কক্সবাজার জেলা সংসদের সাধারণ সম্পাদক মনির মোবারক।

Leave a Reply

Your email address will not be published.